1. news@patiyaralo.com : patiyar alo : patiyar alo
  2. admin@www.patiyaralo.com : news :
শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:২৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শামসুল হুদা ও বদিউল আলম মজুমদারের সমালোচনায় সিইসি সংসদে নির্বাচন কমিশন বিল পাস বোয়ালখালী থানার পুলিশের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার আটককৃত আসামী ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ বোয়ালখালী প্রেসক্লাবকতৃক সংবর্ধিত হলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ ৩ মানবতার স্বাস্থ্য সেবক বিশ্ববাজারে যাচ্ছে বাংলাদেশের তৈরি মোবাইল হ্যান্ডসেট সিনিয়র ছাত্রকে থাপ্পড়, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী বহিষ্কার স্বর্ণ এবং এলুমিনিয়ামের তৈরি বিশ্বের সর্ববৃহৎ কুরআনের প্রদর্শনী দুবাইতে আন্দোলন চালিয়ে যেতে শাবি শিক্ষার্থীদের শপথ মালয়েশিয়ায় পুলিশকে ঘুষ সাধায় বাংলাদেশিকে ২ লাখ টাকা জরিমানা টোঙ্গার আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণ ছিল পরমাণু বোমা থেকে কয়েকশ’ গুন শক্তিশালী

সরকারি বেতন ভাতা পরিশোধে সফটওয়ার চালু

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: বুধবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৪৬ বার পড়া হয়েছে

গভর্নমেন্ট ই-ট্রানজেকশন প্রসেসিং হাব (জিইটিপিএইচ) সফটওয়্যার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও পেনশন, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় বিধবা, বয়স্ক, পঙ্গুত্ব, প্রতিবন্ধী ইত্যাদি ভাতা, বিভিন্ন স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের বিল, জাতীয় সঞ্চয়পত্রের মুনাফা ও মূলধন, শিক্ষার্থীদের বৃত্তি ও উপবৃত্তির অর্থ ইএফসি-এর মাধ্যমে জিটুজি পদ্ধতিতে সরাসরি স্ব-স্ব হিসাবে জমা করার যাবে।

সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সফটওয়্যার উদ্বোধন করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক সবসময় যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলে। অটোমেশনের মাধ্যমে ‘সরকারি ব্যয় ব্যবস্থাপনা শক্তিশালীকরণ’ কর্মসূচিকে আরো বেগবান করতে গভর্নমেন্ট ই-ট্রানজেকশন প্রসেসিং সফটওয়ারটি যুগান্তকারী ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠানের অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ২০০৮ সালে প্রধানমন্ত্রী ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়ে তোলার ঘোষণা দেন। সরকারি বিভিন্ন সেবা স্বল্প সময়ে জনসাধারণের কাছে পৌঁছে দেওয়াই হলো ডিজিটাল বাংলাদেশের অন্যতম লক্ষ্য। আগে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা ব্যক্তির কাছে পৌঁছাতে ৩-৬ মাস সময় লাগতো। কিন্তু ইএফটির মাধ্যমে এখন তা মুহূর্তে পৌঁছে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন এ সফটওয়্যারটির মাধ্যমে এ সেবা এখন আরো দ্রুততর হবে। এর ফলে সময় যেমন বাঁচবে একই সঙ্গে সরকারের খরচও কমবে। যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংক সরকারের পেমেন্ট গেটওয়ে, তাই প্রতিষ্ঠানটি অটোমেশন ও ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে সরকারের ব্যয় হ্রাস করার কৃতিত্বের অন্যতম দাবিদার বলে তিনি মনে করেন।

ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল বলেন, ’৮০-র দশকে কম্পিউটার উপবিভাগের কার্যক্রম শুরু হওয়ার মাধ্যমে ব্যাংকিং এর ডিজিটাল কার্যক্রমের প্রচলন শুরু। অর্থনৈতিক খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রমের সুচারুভাবে সম্পাদনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক সবসময় সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছে। নতুন এ সফটওয়্যারের মাধ্যমে ইএফটি কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করা সম্ভব হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক ইনহাউজ সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করার মধ্য দিয়ে যেমন নিজেদের প্রয়োজন মতো সফটওয়ার তৈরি করছে একই সঙ্গে এর মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় ঘটবে। এই সফটওয়ারের মাধ্যমে দেশের কোটি কোটি মানুষ উপকৃত হবে বলে মনে করেন তিনি।

ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমান বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অগ্রগতি সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সমন্বয়ের ওপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল। বর্তমান সময়ে এ সমন্বয় সর্বোচ্চ পর্যায়ে অবস্থান করছে। বাংলাদেশ ব্যাংক নিজস্ব লোকবল দ্বারা উদ্ভাবিত ১২৯টি সফটওয়ারের মধ্যে ১২৪টি বর্তমানে কার্যকর রয়েছে। তৃতীয় পক্ষ থেকে কেনা ১০টি সফটওয়ারের বিকল্প নিয়েও বাংলাদেশ ব্যাংকের আইটি টিম কাজ করছে। সর্বোপরি আর্থিক খাতের আধুনিকায়নের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক, মতিঝিল অফিসের উদ্যোগে প্রস্তুতকৃত জিইটিপিএইচ সফটওয়ারের সরকারি ব্যয় ব্যবস্থাপনাকে সুষ্ঠু ও সুচারুরূপে পরিচালনার জন্য এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে, যা জাতীয় পর্যায়ে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার অক্ষুণ্ণ রেখেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট নকশা প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত